Wednesday, March 17, 2010

অজানাকে জানা...

১। পৃথিবীতে প্রতিদিন ১০০মিলিয়ন দৈহিক মিলনের ঘটনা ঘটে ।
২। কনডম প্রথম তৈরী হয় ১৫০০ শতাব্দীতে ।
৩। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে কনডম ব্যাবহৃত হত রাইফেলের ব্যারেল এর সুরক্ষার জন্যে সমুদ্রতীরে সাঁতারের সময় যাতে লোনা পানিতে কোন ক্ষতি না হয়।
৪। ১৯৭৩ সাল পর্যন্ত আমেরিকায় মানসিক চিকিৎসকদের কাছে সমলৈঙ্গিক মিলন মানসিক অসুস্থতা হিসেবে ধরা হত ।
৫। Burlesque costumes বর্তমানে সেক্সসিম্বল কিছু হলেও ১৫০০ শতাব্দীতে সেগুলো একটু ভিন্নভাবে ব্যাবহৃত হত । পিউবিক হেয়ার এর উইগ হিসেবে আর পিউবিক উকুন এবং সিফিলিস এর সংক্রমন ঢাকতে তা সে আমলের পতিতারা ব্যাবহার করত ।
৬। সবচেয়ে বেশি সংখ্যক মানুষের ফ্যান্টাসী হয় ওরাল সেক্স নিয়ে এবং সেখানে ৮ শতাংশ মানুষ এ্যানাল ফ্যান্টাসী করেন ।
৭। বিক্রিত প্রতি ১০ টি কনডমের মধ্যে ৪ টির ক্রেতাই নারী ।
৮। ৫৬ শতাংশ পুরুষ কর্মক্ষেত্রেই মিলনে আগ্রহী এবং তা করেও থাকেন ।
৯। প্রতি ৩ জনের ১ জনেরই আফ্যেয়ার আছে এবং ৬২ শতাংশ মনে করেন এতে কোন দোষ নেই ।
১০। কামনার অনুভূতি এর সর্বোচ্চ গতি থাকে চামড়া থেকে মস্তিষ্ক পর্যন্ত যেতে ১৫৬ মাইল/ ঘন্টা ।
১১। বিবাহের সময় মাত্র ২৯% তথাকথিত কৌমার্য বজায় রাখেন ।
১২। গড়পড়তা সঙ্গম স্থায়ীত্বকাল থাকে ৩৯ মিনিট ।
১৩। ৫৮% মানুষ মিলনকালীন সময়ে Dirty talk পছন্দ করেন ।
১৪। ২২% মানুষ অন্তত একবার পর্ণোমুভি রেন্ট করেন ।
১৫। ব্রিটিশ রাজা এ্যাডওয়ার্ডের ( VII ) একটি বিশেষ টেবিল ছিল মিলনকার্য্যের সুবিধার্থে ।
১৬। প্রতি সাধারন ওয়েবসাইটের বিপরীতে ৫ টি করে এ্যাডাল্ট ওয়েবসাইট আছে ।
১৭। দিনের বেলায় গড়ে পুরুষদের ইরেকশন হয় ১১ বার যেখানে রাত্রে হয় ৯ বার করে ।
১৮। "gymnasium" শব্দটি Greek word "gymnazein" থেকে এসেছে যার মানে "to exercise naked."
১৯। পুরুষ এবং মহিলা ইঁদুর প্রতিদিন গড়ে ২০ বার মিলিত হয়
২০। প্রতি ঘন্টায় 70-120 calories খরচ হয় 130 pound মহিলাদের জন্যে , যেখানে 77-155 calories ব্যাবহৃত হয় 170 pound এর পুরুষদের ক্ষেত্রে ।
২১। ১৯শ শতাব্দীর সময়ে ভাইব্রেটর তৈরী হয় হিস্টিরিয়া আক্রান্ত মহিলাদের জন্যে যা তাদের অর্গাজমের জন্যে ব্যাবহৃত হত এবং চিকিৎসকরা এজন্যে তা ব্যাবহার করতে বলতেন ।
২২। ভ্যালিয়ামের চেয়ে ১০ গুন বেশি শক্তিশালী ট্রাংক্যুইলাইজার এই যৌনমিলন ।
২৩। বীর্য্যের মাঝে প্রায় ৩০টি উপাদান রয়েছে , তার কিছু নিম্নরূপ fructose, ascorbic acid, cholesterol, creatine, citric acid, lactic acid, nitrogen, vitamin B12, and various salts and enzymes ।
২৪। মিলনের সময় মেয়েদের বিপুল পরিমানে এন্ড্রোফিন উৎপন্ন হয় যা মাথাব্যাথার জন্যে অত্যন্ত কার্যকরী ঔষধ , তাই মাথাব্যাথা একটি ভুল অজুহাত মাত্র মিলনের ক্ষেত্রে ।
২৫। মেয়েরা মিলনকালীন সময়ে estrogen নির্গমন করে যা তাদের চামড়া এবং চুলের ঔজ্জ্বল্য বাড়িয়ে দেয় ।
২৬। মাইল্ড ডিপ্রেসনের রোগীদের জন্যে মুহূর্তকালীন নিরাময় এই দৈহিক মিলন যা এন্ড্রোফিন নির্গমন করে এবং রক্তের বেগ বৃদ্ধি করে থাকে অনেক । সাময়িকভাবে তা ভাল হবার আবেশ এনে দেয় ।
২৭। প্লেবয় ম্যাগাজিনের মতে আমেরিকান রা জুন মাসে কৌমার্য বিসর্জন দেয় অন্যান্য মাসের তুলনায় ।
২৮। মশার মিলনের স্থায়ীত্বকাল মাত্র ২ সেকেন্ড ।
২৯। শুকরের মিলনের স্থায়ীত্বকাল ৩০ মিনিট গড়ে ।
৩০। রোমান রাজ্যের রাজা নিরো বালকদের কে মৃতা স্ত্রী এর পোষাক পড়িয়ে মিলনকার্যে ব্যাবহার করতেন

কিছু প্রয়োজনীয় সেক্স স্টাইল

সাধারণত সব শ্রেণীর মানুষের মধ্যে এমন ধারণা বিদ্যমান যে, মোটা সঙ্গীর সাথে যৌন সঙ্গম করা অসম্ভব সুখপ্রদ নয়। আসলে এক্ষেত্রে শরীরের মেদের চেয়ে মানসিক উৎকণ্ঠাই সঙ্গমের আনন্দকে বেশি ব্যাহত করে। প্রত্যাখ্যানের ভয়, যৌনসঙ্গীর যৌন চাহিদা মেটাতে অক্ষম বা যৌন সঙ্গম করতে অক্ষম এমন ধরনের কিছু সাধারণ দুশ্চিন্তাই যৌনসুখকে সবচেয়ে বেশি বাধাগ্রস্ত করে। পাশাপাশি যৌন সঙ্গমের ঠিক কৌশল সম্পর্কে অজ্ঞতা, সঙ্গমের পুর্বে সঠিকভাবে উত্তেজিত করতে না জানা, যৌন উত্তেজক স্থানসমূহ না চেনা ইত্যাদি বিভিন্ন কারণে সঙ্গমের চূড়ান্ত সুখ লাভ করা সম্ভব হয় না। আসলে মোটা লোকদের সম্পর্কে সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি অনেকাংশেই নেতিবাচক। ডায়েটিং করা বা দীর্ঘদিন ধরে আংশিক উপোস করার কারণে মোটা লোকদের যৌন বাসনা নষ্ট হয়ে যেতে পারে। পাশাপাশি যেসব মহিলাদের ওজন কমতে শুরু করে, তাদের স্বাভাবিক মাসিকচক্রও অস্বাভাবিক হয়ে যেতে পারে। মোটা বা মেদবহুল মহিলারা সাধারণত এমন ধারণা পোষন করে থাকে যে, তাদের পক্ষে কোনো পুরুষকে যৌনসুখ দেয়া সম্ভব নয় বা তাদেরকে কেউ পছন্দ করে না। ফলে তাদের মধ্যে আত্মবিশ্বাসের অভাব দেখা দেয়। এই ধরনের আত্মবিশ্বাসহীনতা তাদের যৌনজীবনকে অধিকাংশ ক্ষেত্রে বাধাগ্রস্ত করে।

মোটা পুরুষদের বেলায়ও এ ধরনের সমস্যা দেখা যায়। প্রত্যাখ্যান হবার ভয়, যৌন সঙ্গম করতে অক্ষম, বা সঙ্গিণীকে যৌনতৃপ্তি দানে অক্ষম বা তাদেরকে কেউ পছন্দ করে না এমন ধরনের ধারণা তাদেরকে যৌনসঙ্গম থেকে বিরত রাখে। এ ধরনের মানসিক দুশ্চিন্ত ও সামাজিক দৃষ্টভঙ্গি বা সুযোগের অভাব ইত্যাদি বিভিন্ন কারণে দীর্ঘদিন ধরে যৌনসঙ্গম থেকে বিরত থাকলে তারা যৌন সঙ্গমে অক্ষম হয়ে যেতে পারে। আসলে এটি বর্তমানে একটি সামাজিক সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে এবং এ বিষয়ে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অনেক গবেষণাও হয়েছে। গবেষণায় কিছু ফলাফল উল্লেখ করা হলো-

মোটা মানুষের বেলায় শারীরিক যৌন চাহিদা স্বাভাবিক পর্যায়ে থাকে। তবে সঙ্গমের বেলায় অতিরিক্ত মোটা হওয়ার কারণে কিছু সমস্যা দেখা দিতে পারে।

বিবাহিত জীবনে ও যৌন সঙ্গমই মোটা লোকদের আনন্দলাভের গুরুত্বপূর্ণ উপায়।

অবিবাহিত মোটা লোকদের বেলায়ও দেখা যায় তাদের স্বাভাবিক যৌন বাসনা রয়েছে। তবে মানসিক দুশ্চিন্তার কারণে অর্থাৎ তাদের সাথে কেউ যৌনসঙ্গম করতে পছন্দ করে না এমন ধারনা তাদের যৌনজীবনকে বাধাগ্রস্ত করে।

মোটা লোকদের যারা যৌনসঙ্গী খুঁজে পায় না তারা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে হস্তমৈথুনে অভ্যস্ত হয়ে পড়ে।

অনেকক্ষেত্রে দেখা যায় মোটা লোকেরা যৌন সঙ্গমে অধিক পারদর্শী এবং তাদের যৌনবাসনাও বেশি।

মোটা লোকদের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা হলো-তারা সঙ্গমের ক্ষেত্রে কোন আসনে যৌনসঙ্গম করলে তাদের জন্য সুবিধাজনক হবে তা নির্ধারন করতে পারে না। তবে সঠিক আসন বেছে নিয়ে যৌনসঙ্গম করলে তারাও স্বাভাবিক আনন্দ লাভ করতে পারবে।

আসলে মোটা মানুষের ক্ষেত্রে সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন করতে পারলে মোটা লোকদের স্বাভাবিক আত্মবিশ্বাস থাকলে তাদের যৌন জীবনের অনেক সমস্যাই কেটে যাবে।

যৌন সঙ্গমের কিছু আসন

অনেকক্ষেত্রে দেখা যায়, মোটা লোকেরা তাদের যৌন সঙ্গমের ক্ষেত্রে সঠিক আসন বেছে নিতে পারে না। মনে রাখা প্রয়োজন, মানুষের শরীর মোটা হলে বা শরীরের বিভিন্ন স্থানে মেদ জমলেও যোনিপথ বন্ধ হয়ে যায় না বা পুরুষাঙ্গ অতিরিক্ত মোটা হয়ে যায় না। আসলে মোটা হলেও প্রকৃতিগতভাবেই সব যৌনসঙ্গমের জন্য উপযুক্ত। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি যে জিনিসটা জানা দরকার তা হলো- সঙ্গমের উপযুক্ত আসন বা কৌশল। প্রয়োজন মনে করলে আপনি এক্ষেত্রে একজন যৌন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে পারেন।

নিুে প্রয়োজনীয় কিছু যৌন আসনের কৌশল উল্লেখ করা হলো-

পুরুষপ্রধান আসন

এই আসনটিকে সাধারণত মিশনারি আন বলা হয়ে থাকে। সাধারণত মহিলাটি তার পুরুষ সঙ্গীর চেয়ে মোটা হলে এ ধরনের আসন বেশি কার্যকর হয়। এক্ষেত্রে মহিলাটি চিৎ হয়ে শুয়ে দুই পা কটির দিকে বাঁকিয়ে রাখবে এবং হাঁটু সম্পূর্ণ বাঁকিয়ে দুই উরু যতটা সম্ভব ফাঁক করে ধরবে। এতে করে তার যোনিমুখ সম্পূর্ণভাবে সঙ্গম উপযোগী হবে। তার ভুড়ি খুব বড় হলে এ সময় সে দুই হাতে যোনিমুখ থেকে তা ওপরের দিকে টেনে ধরতে পারে। অন্ততপক্ষে পুরুষ সঙ্গীটি তার উরুর মধ্যে সঙ্গম উপযোগী আসন নেয়ার আগ পর্যন্ত এমনটি করা যেতে পারে। এতেও যদি সঙ্গম করা কষ্টকর হয় তবে মহিলাটি একটি বা একাধিক বালিশ তার নিতম্ব বা পাছার নিচে রাখতে পারে। এক্ষেত্রে সঙ্গম করা সহজতর হয় কারণ এতে করে যোনিমুখ ওপরে উঠে আসে। নিতম্বের নিচে একাধিক বালিশ স্থাপন করলে শুধু সঙ্গম করাই সহজ হয় না বরং সঙ্গমের ক্ষেত্রে ভিন্নতাও আসে। সঙ্গমকালে পা দুটি বিভিন্ন উচ্চতায় উঠালে সঙ্গমের ভিন্ন রকম স্বাদ পাওয়া যায়। যৌন বিশেষজ্ঞরা বলে থাকেন মাত্র তিন ইঞ্চি পরিমাণ উচু নিচু করলে যৌন সঙ্গমের অনেক পরিবর্তন আসতে পারে। এই আসনটিকে মেইল আপারেইট আসন ও বলা যেতে পারে। প্রয়োজন মনে করলে সঙ্গমের সময় পুরুষটি তার নিতম্বের ওপর বসে নিতে পারে। এক্ষেত্রে দুই হাত দিয়ে শরীরের উত্তেজক অংশগুলোতে শৃঙ্গার করতে পারে।

এই আসনের মাধ্যমে সঙ্গম করার সময় পুরুষটি মোটা হলে কতগুলো সাধারণত নিয়ম মেনে চলা প্রয়োজন। সঙ্গমের পূর্বে সে তার শরীর ওপরে তুলে ধরবে এবং দুই হাতে ভুড়ি ওপিরে টেনে ধরবে, এতে করে মহিলাটি তার সঙ্গীটির পুরুষাঙ্গ সহজে তার যোনিপথে প্রবেশ করাতে পারবে। এক্ষেত্রেও মহিলাটি তার নিতম্বের নিচে বালিশ দিয়ে নিতে পারে। এসময় প্রথমেই মহিলাটির ওপর তার শরীরের সম্পূর্ণ ওজন ছেড়ে দেয়া উচিত নয়। দ্ ুহাতের ওপরে শরীরের ভর রেখে, আস্তে আস্তে চাপ প্রয়োগ করা বাঞ্ছনীয়। তবে মজার ব্যাপার হলো- উত্তেজনার চূড়ান্ত পর্যায়ে একজন চিকন বা শুকনো মহিলাও অনেক মোটা শরীরের চাপ সহজেই সহ্য করতে পারে।

আরেকটি বিষয় এখানে মনে রাখা প্রয়োজন তাহলো, মোটা পুরুষের ক্ষেত্রে কিভাবে সে তার শরীরের ওজন মহিলা সঙ্গীটির ওপর প্রয়োগ করবে, তা আসলে নিজেরাই পারস্পরিক বোঝা পড়ার মাধ্যমে ঠিক করে নিতে পারে। যদিও যৌনসঙ্গমের সময় যোনিপথে পুরুষাঙ্গ চাপ দিতে শরীরের ওজন প্রয়োগ করা জরুরি নয় তবে অনেক সময় দেখা যায় শরীরের ওজন কৌশলে কেন্দ্রীভূত করে শুধু যৌনাঙ্গের ওপর প্রয়োগ করলে অধিক আনন্দ পাওয়া যায়।

মহিলাপ্রধান আসন

যৌনসঙ্গী অতিরিক্ত মোটা হলে বা দুজনেই মোটা হলে এ ধরনের আসন বেশি কার্যকর বলে যৌন বিশেষজ্ঞরা বলে থাকেন। এই আসনে পুরুষটি চিৎ হয়ে শুয়ে পা সোজা করে রাখবে। এসময় হাঁটু দুটো হাল্কা বাকিয়েও রাখা যায়। ভুড়ি মোটা থাকলে তা দুই হাতে ওপরে টেনে ধরা বাঞ্ছনীয়। এসময় মহিলা তার হাটু বাকিয়ে পুরুষটির যৌনাঙ্গের ওপর মুখোমুখি বসে পুরুষাঙ্গ সহজেই যোনিতে প্রবেশ করিয়ে যৌনসঙ্গম করতে পারে। তবে এই ধরনের আসনে মহিলাটি অতিরিক্ত মোটা হলে কিছু সমস্যা হতে পারে বলে কিছু লোক মনে করে থাকেন। যেমন এতে মহিলাটির অতিরিক্ত চাপে পুরুষটি আহত হতে পারে। তবে অধিকাংশ যৌন বিশেষজ্ঞরা এই আসনটিকে একটি আদর্শ আসন বলে থাকেন। গবেষনায় দেখা যায়, অধিকাংশ মোটা মহিলারা এই আসনটিকে বেশি পছন্দ করে। তবে এই আসনে যৌনসঙ্গম করতে কিছুটা চর্চা ও সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন।

বিপরীতমূখী নারীপ্রধান আসন

পুরুষ ও নারী উভয়েরই অতিরিক্ত ভুড়ি থাকলে এই আসনে যৌনসঙ্গম করা যেতে পারে। এই আসনে পুরুসটি চিৎ হয়ে বা পা দুটো সোজা রাখবে বা হাটু হাল্কা বাকিয়ে রাখতে পারে। এসময় মহিলাটি পুরুষটির মুখের দিকে পিঠ দিয়ে হাটু বাঁকিয়ে পুরুষটির উরুর ওপর বসে সহজেই পুরুষাঙ্গ তার যোনিপথে প্রবেশ করাতে পারে। এই ধরনের আসনে দুজনের তলপেট একসাথে হয় না বলে সহজেই সঙ্গম করা যায়। এসময় পুরুষটি তার মোটা ভুড়ি ওপরে টেনে ধরে মহিলাটিকে সঠিকভাবে বসতে দেয়া প্রয়োজন। তবে এতে সঠিকভাবে সঙ্গম উপযোগী অবস্থান নিতে কিছুটা সময় লাগতে পারে।

পেছনের দিক সঙ্গম করার আসন

পুরুষ ও মহিলা অধিক মোটা হলে বা মহিলাটি গর্ভবতী হলে এই আসনে সঙ্গম করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে মহিলাটি হাটু বাকিয়ে সামনের দিকে ঝুকে পা দুটো হাল্কা ফাক করে ধরবে এবং শরীরের ওপরের অংশ নিচু করবে। ফলে যোনিমুখ ওপরে উঠে আসবে। এ সময় পুরুষটি পা বাকিয়ে হাটুর ওপর ভর দিয়ে ভুড়িটি ওপরে টেনে ধরে মহিলাটির পেছন দিক দিয়ে পুরুষাঙ্গ যোনিপথে প্রবেশ করাতে পারে। পুরুসাঙ্গ যোনিপথে প্রবেশ করাতে পারে। পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করিয়ে তলপেট মহিলাটির নিতম্বের ওপর চেপে রেখে সহজেই সঙ্গম করা যায়। তবে পুরুষাঙ্গ আকারে ছোট হলে বা যোনিমুখ ও যৌনাঙ্গের ভেতরের গঠন অস্বাভাবিক হলে পেছন দিক দিয়ে সঙ্গম করতে কিছুটা সমস্যা হতে পারে। আবার মহিলাটির উরু অত্যাধিক মোটা হলে তার হাটু গেড়ে বসতে সমস্যা হতে পারে।

সিম’র আসন

এই আসনটিও পেছন দিক দিয়ে যৌনসঙ্গম করার মত এক ধরনের আসন। এক্ষেত্রে মহিলাটি একদিকে ফিরে শুয়ে হাটু বাকিয়ে ওপরে পা যতটা সম্ভব মাথার দিকে টেনে তুলবে এবং নিচের পা সোজা থাকবে। এতে করে যোনিমুখ ওপর দিয়ে বা পেছন দিয়ে সঙ্গমের উপযোগী হবে। এ সময় পুরুষটি তার দুটি পা মহিলাটির নিচের পায়ের দু দিকে রেখে হাটু গেড়ে বসে পেছন দিকে দিয়ে যৌনসঙ্গম করতে পারে। প্রয়োজন হলে পুরুষটি তার হাটুর নিচে বালিশ দিয়ে নিতে পারে। মহিলাটি পুরুষটির চেয়ে অধিক মোটা হলে এ ধরনের আসনে যৌনসঙ্গম করা যেতে পারে। এ আসনটি একটু জটিল তবে চেষ্টা করলে বা চর্চা করলে এই আসনে সঙ্গম করা যেতে পারে।

উল্টা আসন (অপসাইড ডাউন পজিশন)

এতে পুরুষ ও মহিলা এমনভাবে বিছানায় কাৎ হয়ে শোবে যাতে একজনের পা অন্যজনের মাথার দিকে থাকে। এভাবে আস্তে আস্তে যৌনাঙ্গ সঠিকস্থানে এনে এই আসনে যৌনসঙ্গম করা যেতে পারে। এতে দুজনের পেটে কোনো সংযোগ ঘটে না।

টি-বর্গ আসন

এই আসনে মহিলাটি তার পা দুটি যতটা সম্ভব ফাঁক করে পিঠের ওপর যথারীতি শোবে। পুরুষটি তার কটির ওপর কাৎ হয়ে শুয়ে মহিলাটির পা দুটি ওপরে তুলে ধরে সহজেই সঙ্গম করতে পারে। এতে তলপেটের সংযোগ ঘটে না।

এক্স-আসন

এটি অনেকটা টি-বর্গীয় আসনের মতই। এক্ষেত্রে মহিলাটি চিৎ হয়ে শুয়ে পা দুটি বাকিয়ে উরুদ্বয় যতটা সম্ভব ফাক করে ধরবে। এই সময় যোনিপথে পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করাবার পর মহিলাটি তার পা দুটি একসাথে করবে এবং পুরুষটির শরীরে তখন ৪৫ ডিগ্রি কোণ সৃষ্টি করবে। এতে করে দুইজনের অবস্থান ইংরেজি বর্ণমালা এক্স-এর আকারের হবে। তবে এটি করার সময় মহিলাটির যোনির পেশি এমনভাবে চেপে রাখা প্রয়োজন যাতে পুরুষাঙ্গ বের হয়ে যায়। এই আসনে পরস্পরের ভুড়ি সঙ্গমের বেলায় বাধা সৃষ্টি করে না।

দাঁড়িয়ে সঙ্গম করার আসন

এক্ষেত্রে মহিলাটি কোনো বিছানা বা টেবিলের কিনারায় বসে হাল্কা হেলান দিয়ে পা দুটি ফাক করে দুটি চেয়ারের ওপর রাখতে পারে। পুরুষটি তখন মহিলাটির পায়ের মাঝে দাড়িয়ে বা প্রয়োজন হলে হাটু গেড়ে বসে যৌন সঙ্গম করতে পারে। প্রয়োজন হলে মহিলাটি শুয়ে থাকতেও পারে। এরপর মহিলাটি দাড়িয়ে তার পা দুটি পুরুষটির পায়ের দুদিকে দিয়ে যোনিপথে পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করিয়ে সঙ্গম করতে পারে। এসময় প্রয়োজন হলে পুরুষটি তার পিঠের নিচে বালিশ দিয়ে নিতে পারে। সুতরাং এই আসনটি দুইভাবে চর্চা করা যায়। তবে এই আসনে যৌনসঙ্গম করতে গেলে প্রয়োজনীয় আসবাবপত্রের প্রয়োজন হয়। অনেক সময় মহিলাটি সামনের দিকে ঝুকে হাত দুটি বিছানার ওপর রাখলে পিছন দিক দিয়ে যৌনসঙ্গম করা যায়। এসময় এক পা ওপরে তুলে রাখলে সঙ্গম আরো সহজতর হয়।

অতিরিক্ত মোটা হলে যৌন সঙ্গমের বেলায় তাদের সঙ্গমকে সফল করতে প্রয়োজনীয় আসবাবপত্রের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন। যেমন-প্রয়োজনীয় বিছানা, টেবিল, চেয়ার ইত্যাদি।

ওরাল সেক্স (বাংলাদেশের জন্য নয়)

ওরাল সেক্স উপভোগ করতে জানলে অত্যন্ত আনন্দদায়ক হতে পারে। সাধারণত মোটা মহিলারা ওরাল সেক্সের বেলায় বেশ পটু হয়ে থাকে। তবে যে জিনিসটি মনে রাখা প্রয়োজন তা হলো- ওরাল সেক্স আসলে এক তরফা কিছু নয়। মুখ মেহনের মাধ্যমে যৌনসঙ্গী দুজনই পরস্পরকে আনন্দ দিতে পারে। যৌন বিশেষজ্ঞরা ৬৯ পদ্ধতির ওরাল সেক্সের পরামর্শ দিয়ে থাকেন। মুখ মেহন বা ওরাল সেক্স যৌনসঙ্গমের অংশও বটে। এর মাধ্যমে যৌনসঙ্গমকে আরো অধিক আনন্দময় করা যেতে পারে।

সঙ্গমবিহীন যৌনতা

যোনিপথে পুরুষাঙ্গ প্রবেশ না করিয়েও অনেক সময় যৌন আনন্দ লাভ করা যায়। যেমন- যোনিপথে কৌশলে আঙ্গুল প্রবেশ করিয়ে মহিলাটিকে যৌন আনন্দ দেয়া যায় যৌন উত্তেজক আলোচনা, শৃঙ্গার, হাসি ঠাট্টা, স্পর্শ করা, উত্তেজক বই পড়া বা উত্তেজক ছবি দেখা ইত্যাদি বিভিন্ন ভাবে যৌন আনন্দ লাভ করা যায়। মনে রাখা প্রয়োজন পরস্পর খুব কাছাকাছি থাকার ফলে সঙ্গমের আনন্দ লাভ না করতে পারলেও অন্তত ভালোবাসার আনন্দ পাওয়া যায়।

যৌন উত্তেজনার ধারা

নারী পুরুষের যৌন উত্তেজনার ধারা পৃথিবীব্যাপী একই রকম। অর্থাৎ পৃথিবীর যে কোনো দেশে নারী পুরুষ একই রকমভাবে যৌন উত্তেজিত হয় এবং যৌনমিলনে অংশগ্রহণ করে। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন আলোচনা যৌনতার ব্যাপারটি উল্লেখ হয়ে থাকে। পৃথিবীব্যাপী যৌনতার উপর গবেষণা এবং আলোচনা হয় ব্যাপকভাবে । আমেরিকান বিখ্যাত কিনসে ইনস্টিটিউট নারী পুরুষের যৌনতার বিভিন্ন দিক পর্যালোচনা করে। যৌনতা হলো নারী পুরুষের দৈহিক মিলন প্রাণিজগতের অন্যান্য প্রাণীর মতো নারী পুরুষের যৌনতা বাহ্যিকভাবে প্রকাশ্য নয়। বরং নারী পুরুষের যৌনমিলন এবং যৌনতা সংঘটিত হয় সুস্থ সুন্দর পরিবেশে। পৃথিবীর আদি থেকে চলে আসা একটি সংস্কৃতি হলো যৌন সংস্কৃতি। এই যৌন সংস্কৃতি প্রতিটি পুরুষ এবং নারীর জীবনের খুব আদৃত একটি অংশ। নারীর সাথে পুরুষের দৈহিক মিলনের সময় নারী উত্তেজিত হয় এবং পাশপাশি পুরুষের ও যৌন উত্তেজনা আসে। পুরুষের স্পর্শের প্রথম থেকেই নারীর ভেতরে যৌন উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। নারীর শরীর কেপে উঠতে পারে যা খুব সামান্য সময় ধরে অনুভূত হয়। যৌনমিলনের সময় নারীর দেহ এবং পুরুষের দেহের প্রধান যে পরিবর্তন হয় তাহলো উভয়েরই শারীরিক চাপ বৃদ্ধি পায়, রক্তের চাপ বাড়ে, শ্বাস প্রশ্বাস দ্রুত হয় এবং উভয়েই চূড়ান্ত আনন্দের জন্যে অস্থির হয়ে উঠে । নারীর যৌন জীবন পুরুষের চেয়ে অপোকৃত । নারীর যৌনতার সংস্কৃতিতে বোধ করি পুরুষের চেয়ে আলাদা। নারীর যৌন আগ্রহ, ইচ্ছা যৌনতার চরম আনন্দ ইত্যাদি প্রতিটি পর্বে পুরুষের চেয়ে স্বতন্ত্র অবস্থার সৃষ্টি করে। যৌন উত্তেজনার সময় অন্যান্য যে পরিবর্তনগুলো লণীয় হয় সেগুলো হলো।

স্তনবৃন্তের ফুলে উঠা।
স্তনের আকার বড় হয়ে যাওয়া।
শরীরে যৌন ঝলকের উপস্থিতি।
নারীর ক্ষেত্রে কিটোরিসের রঙের পরিবর্তন।
পুরুষের ক্ষেত্রে লিঙ্গের মাথার রঙের পরিবর্তন।

প্রথম যুগের মানুষের যৌনতার্ ছিল কেবল মাত্র ক্ষণিক আনন্দের একটি উৎস। পরবর্তী সময়ে যৌনতার ব্যবহারিক পরিবর্তন দেখা দেয়। এক সময়ে এক নারী একই সাথে একই পরিবারের সবার সাথে যৌনমিলনে রত হতে পারতো। এটি ছিল যৌনতার সংস্কৃতি। তখন কার সমসাময়িক যৌন সংস্কৃতি ছিল এই রকম। যুগে যুগে যৌন সংস্কৃতি পরিবর্তিত হয়েছে। আবার যৌতার ব্যাপারে ধর্মীয় নানা মতবাদের প্রভাবে যৌনতার বিষয়টি একেক সমাজে একেক ভাবে অনুশীলন করা হয়ে থাকে। বর্তমান সময়ে এই নতুন যুগে যৌনতার ব্যাপারটি নানা দিক থেকে আধুনিক হয়ে উঠেছে বর্তমান সময়ে যৌনাসনের পাশাপাশি যৌন ক্রীড়াতে নানা পরিবর্তন ছন্দ দেখা যায়। নারী, পুরুষের ক্ষেত্রে যৌনতার আবহ একেক না্‌রী পুরুষের ক্ষেত্রে একেক রকম । যখন কোনো প্রেমিকের সাথে যৌনমিলন বা ডেটিং করে তখন যৌতার ব্যাপাটি যে ভাবে হতে পারে ঠিক সেভাবে স্বামী-স্ত্রীর যৌনতার ব্যাপাটি সংঘটিত হয় না। একই নারী যখন বহু পুরুষের সাথে যৌনমিলন বা যৌন সর্ম্পক স্থাপন করে, তখন ও আবার যৌনতার সংস্কৃতি ভিন্ন হয়। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন নারী পুরুষের ক্ষেত্রে যৌনতার ব্যাপাটি সব সময় একই ধারায় এগিয়ে চলে না । যৌনমিলনের ব্যাপারে বা যৌনতার ব্যাপারে সব নারীরেই ইচ্ছা একই রকম হয় না। এটিও আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। কোনো কোনো নারী অত্যাধিক যৌনকাতর । আবার কোনো কোনো পুরুষের যৌন ইচ্ছা থাকে বেশি অর্থাৎ যৌনতার ব্যাপারে তাদের আগ্রহ এবং যৌন মিলনের ইচ্ছা থাকে ব্যাপক। আবার কোনো কোনো নারী-পুরুষ সুস্থ যৌনতার পপাতি এবং তারা প্রয়োজন মাফিক যৌনমিলন পছন্দ করে। আবার কিছু কিছু নারী-পুরুষ যৌনতাকে খুবই কম মাত্রায় পছন্দ করে। অনেকের এ ব্যাপারে ভীতিও থাকে। যৌনতার ব্যাপার বিশেষ করে নারী, পুরুষের যৌনতার ব্যাপারে উৎসাহ এবং আগ্রহ যদি না থাকে তবে চরমপুলক আসতে পারে না। বহু নারী, পুরুষকে এমন অভিযোগ করতে শোনা যায় যে তারা যৌন জীবনে সুখী নয়। মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা গবেষণায় দেখেছেন, যে নারীরা পুরুষ স্বামীর সাথে বা স্ত্রীর সাথে কিংবা যৌন সঙ্গীর সাথে যৌনমিলনের সময় উৎসাহী বা আগ্রহী হয়ে উঠে না, তারা তুলনামূকভাবে কম যৌন আনন্দ লাভ করে। অথচ তারা এই বিষয়টি উপলব্ধি করতে পারেনা। যৌনতা এবং যৌন সর্ম্পক নারী পুরুষের জীবনের জন্য একটি প্রয়োজনীয় এবং জীবন ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক। পুরুষ এবং নারীর যৌনতা সাথে সম্পর্কের ফলে যৌন আনন্দ যেমন লাভ করে তেমনি শিশুর জন্ম দিতে পারে । যৌন সম্পর্ক তৈরীর প্রাথমিক পর্যায়ে অনেকেই বুঝতে পারেন না যৌনমিলনের জন্য প্রয়োজনীয় কি কি বিষয় সম্পর্কে জানা উচিত। মানুষের শরীরের বাহ্যিক ইন্দ্রিয়ের গঠন এবং ভেতরের ঘঠন এক নয়। আবার পুরুষ এবং নারীর শরীরের গঠনে ও কিছুটা পার্থক্য রয়েছে । নারীর শরীর পুরুষের চেয়ে অপোকৃত স্পর্শ কাতর। নারীর কোনো অঙ্গে স্পর্শের ফলে শরীর যৌন অনুভূতি এবং সাড়া জাগাতে পারে পুরুষকে সে বিষয়ে জানতে হবে। তেমনি আবার নারীরও জানা উচিত পুরুষের কোন কোন স্থানে যৌন অনুভূতি ছড়িয়ে রয়েছে। এই ক্ষেত্রে উভইকে অর্থ্যাৎ নারী এবং পুরুষকে উভয়ের দেহ গঠন এবং উভয়ের শরীর সম্পর্কে একটি ধারণা থাকা উচিত। মানুষের যৌন ইচ্ছার বিশ্লেষণ কি? যখন কোনো পুরুষ যৌন চিন্তা বোধ করে তখনই তাদের ভেতর এক ধরণের যৌন অনুভূতি কাজ করতে থাকে। পুরুষের লিঙ্গ দৃঢ় হতে থাকে এবং নারীর যোনি কিছুটা আর্দ্র হতে শুরু করে । যৌন ইচ্ছার জন্য সবচেয়ে বেশি কাজ করে মানুষের মস্তিষ্ক। মস্তিষ্কের লিম্বিক সিস্টেম মানুষের যৌন অনুভূতিকে প্রথম জাগিয়ে তোলে। মস্তিষ্কের সেরেব্রাম অংশে যৌন চিন্তা উদিত হয়। তারপর এই চিন্তার সূত্র ধরে তা তাড়িত হয়ে পুরুষের অথবা নারীর যৌনাঙ্গে অনুর্বর হয়। নানা ধরনের যৌন চিন্তা, যৌন স্মৃতি, যৌন ইচ্ছাকে চাঙ্গা করতে থাকে এবং যৌন অনুভূতি এই সময়ে বেড়ে যেতে থাকে। এই সময়ে পুরুষ ও নারী ইচ্ছার পূর্ণতা খুঁজে পায় এবং যৌনমিলনের আগ্রহী হয়ে উঠে। তবে নানা বিধ শারীরিক এবং মানসিক সমস্যা পুরুষ কিংবা নারীর ইচ্ছা এবং যৌন শক্তিকে কমিয়ে দিতে পারে। যৌন উত্তেজনার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত উভয়ের শরীরেই এক প্রকার অস্থিরতা দেখা দেয় যা চরমপুলকের বিষয়টি হলো পুরুষের ক্ষেত্রে বীর্যপাত এবং নারীর ক্ষেত্রে চূড়ান্ত আনন্দ লাভ। পুরুষের লিঙ্গের ণস্থায়ী স্পর্শে নারীর ভেতর যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয় তা পুরুষ যেমন উপভোগ করে , নারীও তেমনি উপভোগ করে। অনেক নারীর যৌনান্দ আরো তীব্র হয় কিটোরিসের স্পর্শের দ্বারা। পুরুষ ওরাল সেঙের মাধ্যমে হয়তো এটা করতে পারে। যৌনমিলনের সময় উভয়ের দৈহিক অস্থিরতা যৌন উত্তেজনার প্রধান চিহ্ন।

সূত্রঃ প্রফেসর ডাঃ মোহাম্মদ ফিরোজ

ওরাল সেক্স (Sexual oralism)

মুখ গহ্ববর দ্বারা বিপরীত লিঙ্গ বা সমলিঙ্গের যৌনাঙ্গ চোষন (Sucking) বা লেহন করে যে যৌন ক্রিয়া সম্পন্ন করা হয় তাকে ওরাল সেক্স বলা হয়। এটা দু ধরনের, যখন পুরুষ সঙ্গীটি স্ত্রী সঙ্গীর যৌনাঙ্গ চোষন করে পুর্ন যৌন পরিতৃপ্তি গ্রহন করে তাকে কনিলিঙ্গাস (Connillingus) বলা হয়। আবার স্ত্রী সঙ্গীটি পুরুষ সঙ্গীর যৌনাঙ্গ চোষন করে পুর্ন যৌন পরিতৃপ্তি গ্রহন করলে তাকে ফেলাসিও (Fellatio) বলা হয়। যুগলদের মধ্যে কনিলিঙ্গাস এবং ফেলাসিও ই যখন চরম যৌন পরিতৃপ্তি লাভের একমাত্র ক্রিয়া হিসেবে ব্যবহৃত হয় তখন তা অস্বাভাবিক যৌনাচার হিসেবে গন্য করা হয়। যখন কোনো যুগল মুল রতি ক্রিয়া বা মিলনের পূর্বে Love play এর অংশ হিসেবে ওরাল সেক্স করে তখন তা স্বাভাবিক যৌনাচার হিসেবেই গন্য করা হয়।

১০০ ক্রেজি সেক্স সিক্রেট

সেক্স সম্পর্কে জানা মানেই হচ্ছে নিজের সম্পর্কে জানা। অথচ লজ্জা বা আড়ষ্ঠতার কারণে অনেকেই সেক্স নিয়ে খুব একটা ভাল ধারণা রাখেন না। ফলে ব্যক্তিগত যৌনজীবন হয়ে পড়ে একঘেয়েমীপূর্ণ এবং বৈচিত্র্যহীন। আবার অজ্ঞতার কারণে বিভিন্ন রকম যৌন সমস্যায় পতিত হওয়ার সম্ভাবনাও থাকে। এসব সমস্যা থেকে উত্তীর্ণ হতে সেক্স সিক্রেট জানাটা গুরুত্বপূর্ণ। যৌন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের সঙ্গে কথা বলে জানাচ্ছেন- কাজী মারুপ আহমেদ।

১) কারো শরীর দেখে কি সেক্সচুয়াল সক্ষমতা বোঝা সম্ভব?
: না।
২) অনেক দূরে থাকা প্রিয়জনের সাথে ফোন সেক্স করতে চান অথচ বলতে লজ্জা পাচ্ছেন, লজ্জা ভাঙ্গবেন কীভাবে?
: প্রথমে তাকে মজার এসএমএস পাঠান। দেখবেন আস্তে আস্তে ইজি হয়ে যাবেন তার সাথে।
৩) পানির নিচে কনডম কতটা কার্যকর?
: তা এখনো পরীক্ষা করা হয়নি তাই বিশ্বস্ততার স্বার্থে সতর্ক হওয়া উচিত।
৪) পছন্দের ব্যক্তির কাছে নিজেকে বিশ্বস্ত করার জন্য সবচেয়ে ভালো গান কি হতে পারে।
: জাস্টিফাই মাই লাভ বাই ম্যাডোনা।
৫) যদি পার্টনার আপনার চেয়ে অনেক বেশি লম্বা হয় তবে শারীরিক সম্পর্ক করার ক্ষেত্রে কি করবেন।
: এমন স্থান এবং আসন নির্বাচন করা উচিত যেখানে আপনি স্পিড কন্ট্রোল করতে পারবেন। যেমন মেয়ে পার্টনার উপরে থাকা।
৬) ব্লো জব এর সময় অনেকেই দাঁত ব্যবহার করে, আপনি কতটা জানেন।
: খুব কম সংখ্যক যুগলই এমনটা করে থাকে। তবে ব্লো জবের সময় এটা করতে চাইলে অবশ্যই পার্টনারকে জিজ্ঞাস করে নিবেন।
৭) প্রিয়জনের সঙ্গে যখন যৌন উত্তেজনা চরমে তখন সে আপনাকে কিছুই করতে দেয়না। এখানে কি ভুলবোঝাবুঝির অবকাশ আছে?
: এটা সকলের ক্ষেত্রে হয়না ।
৮) পুরুষের কমন ফ্যান্টাসি কী?
: একাধিক নারীর সঙ্গে সমানতালে সম্পর্ক চালিয়ে যাওয়া।
৯) উত্তেজনার সময় পুরুষের বিশেষ অঙ্গ কিছুটা বেঁকে যায, এতে কি উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ আছে?
: মাঝে মাঝে বেঁকে যাওয়া সাধারণ ঘটনা। তবে আঘাত জনিত কারণে ঘটলে ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া উচিত।
১০) পিরিয়ড-এর সময় রুক্ষ্ম এবং শুষ্ক অনুভূতি হওয়ার কারণ কী?
: কারণ ঐ সময় গর্ভ সঞ্চার হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কম থাকে।
১১) সেক্স নিয়ে ভাবলে কি মেয়েদের অরগাজম হয়?
: এটা মাত্র ২ শতাংশ নারীর হয় এবং তারা অবশ্যই ভাগ্যবান।
১২) ছত্রাক জাতীয় ইনফেকশনে আক্রান্ত হলে কি সেক্স করা উচিত?
: পার্টনারও এই ছত্রাক জাতীয় রোগে আক্রান্ত হতে পারে তাই অধিক সচেতন হওয়া বাঞ্ছনীয়।
১৩) প্রত্যেকেরই কি জি-স্পট থাকে?
: হুম। এটা প্রত্যেক স্তন্যপায়ী প্রানীরই থাকে।
১৪) শুষ্ক অবস্থায় সেক্সের ভালো উপায় কি হতে পারে?
: এন্টিহিস্টামিন জাতীয় ঔষধ গ্রহণ করলে এমটি হতে পারে। তাই এটি গ্রহণ না করে এবং ওয়াটার বেস লুব ব্যবহার করে সমস্যা সমাধান হতে পারে।
১৫) সেক্সুয়ালি টেন্সমিটেড ডিজিজ পরীক্ষা কি ঘরেই করা সম্ভব, না ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া উচিত?
: ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিশ্চিত হওয়াই উত্তম।
১৬) কীভাবে পেরিনিয়ামকে সর্বোচ্চ উত্তেজিত করা যায ?
: আলতোভাবে দু্‌ই আঙ্গুল দিয়ে চাপ দেয়া যেতে পারে।
১৭) ব্লু বল কি সত্যিকারে আছে?
: দীর্ঘস্থায়ী মিলনের কারণে অন্ডকোষ এবং পেরিনিয়ামে অস্বস্তির সৃষ্টি হতে পারে তবে কোন ব্যথা অনুভূত হয় না ।
১৮) সেক্সের সময় ভাইব্রেটর ইউস করার উত্তম পদ্ধতি কি?
: সেক্সের ক্ষেত্রে ভাইব্রেটর ইউস করার সময় সচেতনতা অবলম্বন করা উচিত।
১৯) পার্টনারকে আরো বেশি কাছে পাওয়ার জন্য কি ধরনের ভাষা ব্যবহার করা যেতে পারে?
: আমি তোমাকে সব সময়ই অনুভব করি যা তুমি নিজেও কর আমার প্রতি। তুমি সব সময়ই সব অবস্থাতে অনেক বেশি উত্তম।
২০) আপনি যা করতে চান সে বিষয়ে পার্টনারের ইতিবাচক সাড়া পাওয়ার উপায় কী?
: পেট কিংবা তার বুকে সেক্সের দৃষ্টিতে তাকান। যদি তাতেও না হয় তবে তাকে বলতে পারেন আপনার অনুভূতির কথা।
২১) ছোট্ট ভগঙ্কুর সমস্যা আছে। এটা কি অর্গাজমের ক্ষেত্রে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে?
: এক্ষেত্রে কখনোই অতিরিক্ত উত্তেজনাকর পরিস্থিতিতে না যাওয়াই ভাল।
২২) পার্টনারের সঙ্গে অরগাজম উপভোগ করতে পারছি না। এটা কি কোন সমস্যা?
: না, এটা কোন সমস্যা না।
২৩) যদি পার্টনার এবং নিজে একই ধরনের যৌন রোগে আক্রান্ত হয় এক্ষেত্রে কি কনডম ব্যবহার করা বাধ্যতামূলক?
:না, এক্ষেত্রে দু’জনের একই চিকিৎসা নেয়া যেতে পারে। এন্টিবায়োটিক বেশি ফল দিবে।
২৪) সেক্সের ক্ষেত্রে পুরুষের লং লাস্টিং কীভাবে সম্ভব?
: বেশির ভাগ সময়ই পার্টনারকে সুইস অবস্থায় রাখতে হবে। এতে করে লং লাস্টিং সম্ভব হবে।
২৫) সেক্সে পরিপূর্ণ তৃপ্তির জন্যর জন্য কোন ধরনের খাবার গ্রহণ করা যেতে পারে কি?
: রসুন এবং এসপারাগাস এবং বেশি করে আনারস খেতে পারেন।
২৬) স্পর্শ করা আগেই কি পরিপক্ক ব্যক্তি তার পার্টনারের সেক্সচুয়াল সক্ষমতা জানতে পারে?
: নিশ্চয়ই সেক্সকে জুয়া খেলা কিংবা প্রজাপতির মত নয়।
২৭) সুইস অবস্থায় পার্টনার অমনোযোগী হওয়াটা কি কোন ভুল?
: না, তবে তাকে এ অবস্থায় থাকার জন্য পুরুষকে সহযোগিতা করা উচিত।
২৮) নারীরা কি সেক্সের সময় নিপলকেও সমানে সমানে চালাতে পছন্দ করে।
: কেউ কেউ করতে চায়, আবার ব্যতিক্রমও আছে। এক্ষেত্রে পার্টনারকে মূল্যায়ন করুন।
২৯) একই সময়ে একজন নারীর কতবার অরগাজম হতে পারে?
: এটা নিশ্চিতভাবে বলা যাবে না, তবে নিজের অবস্থার রেকর্ড করলে হয়ত জানা যাবে।
৩০) নারীর অরগাজম যদি দ্রুত হয় তবে নারী এবং পুরুষের অরগাজম কি একই সময়ে ঘটানো সম্ভব?
: নিজের বিরতির সময়ই আরগাজম নিজ গতিতে চলতে থাকে। তাই প্রথম বার না হলেও ২য় বার চেষ্টা করা যেতে পারে।
৩১) অ্যানল করার চেষ্টা করার সময় ভয় হয়, কোন আঘাত লাগে কি না, এটাকে আনন্দদায়ক করার জন্য কি করা যেতে পারে?
: প্রথমত পরিপূর্ণ লুব ব্যবহার করুণ এবং আঙ্গুল দিয়ে প্রথমে পরীক্ষা করুন তারপর ধীরে ধীরে প্রবেশ করান।
৩২) কি করলে খুব সহজে যৌন কামনা সৃষ্টি করা যায়?
: মনে মনে সেক্সি ভাবনায় তা অনেক সহজ হয়।
৩৩) যদি দীর্ঘ সময় যাবত ভায়াগ্রা ব্যবহার করা হয় তবে তা কি কোন সমস্যার সৃষ্টি করবে?
: এটা এখনো জানা সম্ভব হয়নি, তবে দীর্ঘ দিন ব্যবহার করলে শারীরিকভাবে এর প্রতি নির্ভরশীল হওয়ার সম্ভাবনা আছে।
৩৪) কোন সিরিয়াল কিসারের সাথে ডেটিং করলে কি বুঝতে হবে তার চুষার অভ্যাস খুব বেশি?
: হতেও পারে।
৩৫) আমি কিভাবে পার্টনারকে অনেক বেশি আকর্ষণীয় ভাবে পেতে পারি?
: পার্টনারকে একাজে প্রলুব্ধ করতে হবে, তার শরীরে আলতোভাবে স্পর্শ করা যেতে পারে, যা অনেক বেশি আকর্ষণ করবে।
৩৬) সেক্স করার পর কেন পার্টনার অনেক বেশি দূরে চলে যায়?
: তখন ঐসব চিন্তা তার মাথায় না থাকায় দূরে সরতে চায়।
৩৭) মিলিত হওয়ার পর কি মুখের স্পর্শ প্রয়োজন হয়?
: না, এটা শুধু মিলিত হওয়ার আগেই স্পর্শকাতর স্থানে করা যেতে পারে।
৩৮) একজনের পক্ষে কি অনেক বেশি মাস্টারবেশন করা সম্ভব?
: এটা নিজের মনোযোগের ব্যাপার।
৩৯) ইজিকুলেট ছাড়াই কি অরগাজম হতে পারে?
: হ্যাঁ
৪০) সেক্সের সময় কিভাবে পিউবোকক্কিজিয়াস মাসেল ব্যবহার করা যায়?
: মিলনরত অবস্থায় নমনীয় হতে হবে এবং প্রকাশ করতে হবে। বিভিন্ন ভাবেই এটা করা যেতে পারে।
৪১) সেক্সের সময় এমন কিছু কি আছে যা অধিক আর্দ্র করে?
: না
৪২) কখন দ্রুত ইজিকুলেট হয়?
: যদি অধিক সময় আশা না করে বা মিলনের সময় বাজে চিন্তা করে।
৪৩) আপনি হয়ত নিয়ম মানেন কিন্তু করলেন ভিন্ন যেমন ছাত্রী শিক্ষক প্রেমের সম্পর্ক, এছাড়াও বেডরুমে ফেন্টাসি আর কি হতে পারে?
: চোর – পুলিশ, ব্রেড – অ্যানজেলিনা।
৪৪) সেক্সের সময় প্রস্রাব বোধ হয় কেন?
: কারণ মুত্রথলির কাছাকছি যৌনাঙ্গ চলে আসে। এটা সত্যিকার অর্থেই হতে পারে।
৪৫) নারীদের কি সেক্সচ্যুয়াল সক্ষমতা বেশি?
: এটা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
৪৬) জঠর নিয়ে সচেতন কিন্তু ঢেকে রাখতে না চাইলে সেক্সের সময় কি করা উচিত?
: এটাকে ডগিং স্টাইলে করলে ভাল ফল পাওয়া যাবে।
৪৭) স্পাঙ্ক করতে চান, কিভাবে পার্টনারকে বুঝাবেন?
: প্রথমেই স্পাঙ্ক করুন।
৪৮) ভাইব্রেটর ইউস করলে কি উত্তেজনা কমে?
: সাময়িকভাবে এটা হতে পারে।
৪৯) হ্যান্ড জব করার সময় কিভাবে উত্তেজনা ধরে রাখা যায়?
: চিন্তা করুন কি ধরনের শক্ত জিনিস ব্যবহার করে করতে সক্ষম হবেন।
৫০) সেক্সের পরের ব্যথা হলে কি করতে হবে?
: ভালো লুব ব্যবহার করা যেতে পারে, আঘাত পেলে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা উচিত।
৫১) সেক্স টয় কিভাবে পরিস্কার করতে হয়?
: গরম পানিতে মিল্ড সাবান দিয়ে ধুতে হবে।
৫২) কনডম লাগানো উত্তম পদ্ধতি কি?
: মুখ এবং হাতের স্পর্শে মাথা থেকে লাগাতে হয়।
৫৩) পুরুষাঙ্গ যদি ছোট হয় তবে কিভাবে তা বড় অনুভব সম্বব?
: ডগি স্টাইল সেক্স।
৫৪) দীর্ঘপুচ্ছ না হলে কি করা উচিত?
: হাতের কাছে সব সময় টিস্যু রাখতে হবে এবং আলতোভাবে মুখে ঘষতে হবে।
৫৫) পার্টনারকে না জানিয়েও কিভাবে তার যৌন সমস্যা (এসটিডি) পরীক্ষা করা যায়?
: পার্টনারকে আদর করার সময় সতর্কতার সাথে তা পরীক্ষা যেতে পারে।
৫৬) পিছন থেকে চাইলে কিভাবে করতে হবে?
: হাত দিয়ে আলতো ভাবে ঘষতে হবে তারপর আস্তে আস্তে প্রবেশ করা যাবে।
৫৭) বিশেষ মূহুর্তে যদি কনডম ছিদ্র হয়ে যায় তবে কি করা উচিত?
: যদি পিল নেয়া অবস্থায় না থাকে তবে এসটিডি টেষ্ট করা দরকার।
৫৮) কনডম না ফুঁটা হওয়ার কোন নির্দিষ্ট পদ্ধতি আছে কি?
: না, নিজের প্রচেষ্টায় এটা সম্ভব।
৫৯) গরম টিউবে করা কি উচিত হবে?
: না
৬০) প্রিয়জনকে বন্ধনে রাখার জন্য কি করা যেতে পারে?
: নিজের অতি নিকটে প্রিয়জনকে রাখা এবং নিজের প্রতি তাকে নির্ভরশীল করে নিতে হবে।
৬১) পার্টনারকে সেক্সের আগে পরিস্কার হয়ে আসার কথা বলা উচিত?
: না, তবে সেপ্টির জন্য তাকে বলতে পারেন।
৬২) সেক্সের সময় গর্ভাশয়ের সংকীর্ণ অংশে আঘাতে সন্তান মারা যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে, এ অবস্থায় কি করা উচিত?
: এঅবস্থায় সতর্কতার সাথে আলতোভাবে প্রবেশ করানো উচিত।
৬৩) ক্লিটোরাল উত্তেজনায় উত্তম পদ্ধতি কি?
: পুরুষ উপরে থাকলে ভাল।
৬৪) সিএটি পজিশন বলতে কি বুঝায়?
: কইটাল ইলিগমেন্ট পদ্ধতি।
৬৫) মরনিং উড মানে কি সকালে সেক্স বুঝায়?
: না, তবে ঐসময় সে খুশি থাকে।
৬৬) সহবাস না করেও ফেন্টাসি আছে এটা কিভাবে বলা উচিত?
: পার্টনারকে বলুন আপনার একটা যৌন স্বপ্ন আছে, সে শুনতে চায় কিনা জিজ্ঞাস করাই উত্তম।
৬৭) বেশি বেশি মিলিত হওয়ার ইচ্ছে কীভাবে বাস্তবায়ন করা যায়?
: এক্ষেত্রে পার্টনারের ফিটনেস এবং ইচ্ছেটা তৈরি করা জরুরি।
৬৮) মিলিত হওয়ার সময় কাতুকুতু লাগলে কি করা উচিত?
: পেশিকে আরামে রাখতে হবে। যা করছেন তার প্রতি পূর্ণ মনোযোগ দিন।
৬৯) পুরুষ ও নারীর অরগাজমের অমিল কেন?
: কারণ পুরুষ ব্যাটারির পাওয়ারে চলেন না।
৭০) পিরিয়ডের সময় পরিচ্ছন্ন সেক্স কীভাবে করা যায়?
: ঝরনার নিচে কিংবা নিজের নিচে তোয়ালে দিয়ে।
৭১) ৬৯ পদ্ধতির জন্য ভাল পদ্ধতি কি?
: নিজে উপরে থাকা অথবা সাইড বাই সাইড।
৭২) পাবলিক স্থানে কিন্তু অধিক পাবলিক স্থানে নয় এমন জায়গা কি হতে পারে?
: শান্ত রাস্তার পাশে প্রাইভেট কারে করা যেতে পারে।
৭৩) পার্টনার ড্রিংক করা অবস্থায় যৌনতা ভুলে যায়, কি করা উচিত?
: বেশি পরিমাণ ড্রিংক বন্ধ করতে হবে।
৭৪) মাত্রাতিরিক্ত সেক্স করা কি সম্ভব?
: না
৭৫) শরীরের কোন কোন অঙ্গ অজানা যৌন উত্তেজক?
: মাথার ত্বক এবং নাসারন্ধ্র।
৭৬) উত্তেজিত অবস্থায় পুরুষাঙ্গের দৈর্ঘ্য কত ?
: ৫.৫ থেকে ৬.২ ইঞ্চি
৭৭) প্রিয়জন নিজের থেকে প্রায় ১ ফুট লম্বা এবং বেডরুমে সব সময় লাইনআপ করা যায় না । ভাল পজিশন কি হতে পারে?
: পা ফাঁক করে ভাল পজিশন তৈরি করা যেতে পারে।
৭৮) পুরুষের এসটিডি টেস্ট করার ভাল পদ্ধতি কি হতে পারে?
: দুজনে একসাথে এসটিডি করা।
৭৯) ওরাল করার পর বিরতিতে কি করা উচিত?
: নিজের হাত চাটা এবং তার উরু এবং পেটে কিস করা যেতে পারে।
৮০) অপ্রকাশিত অনলাইন সেক্স কি চ্যাটিং হিসাবে গণ্য হবে?
: যদি সে না প্রকাশ করে তবে তার জন্য হ্যাঁ হবে।
৮১) সেক্সের সময় যদি অরগাজম না হয় তার মানে কি বুঝতে হবে?
: সে মনকষ্টে ভুগতে পারে। তাই তার মনকষ্ট লাগবে তার সাথে কথা বলা উচিত।
৮২) প্রিয়জনের সাথে যৌন দৃশ্যের ভিডিওতে অংশ নেয়ার সময় কি মনে রাখা উচিত?
: ওয়াইড শর্ট এবং শর্ট লাইটিং ব্যবহার করা দরকার।
৮৩) কনডম সাইজ কি আসলেই একটা বড় ব্যাপার?
: বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই সকল পুরুষের জন্য কনডম সাইজ একই হয়, তবে কমফোর্ট ফিল করার জন্য বড় সাইজ ব্যবহার করা যেতে পারে।
৮৪) সেক্স করার পর পুরুষের ঝাকুনি মারার কারণ কি?
: এটা অরগাজমের কারণে হয়।
৮৫) ফিমেল কনডম এবং মেল কনডম কি একই ভাবে নিরাপদ?
: এসব অপেক্ষাকৃত কম ইফেকটিভ এবং অনেক বেশি ঝুকিপূর্ণ।
৮৬) কনডমের সেপটি না জেনে ব্যবহার করা উচিত হবে কিনা ?
: ইনফেকশন তৈরী করতে পারে এবং সেই সাথে নানা ধরনের রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
৮৭) পার্টনারের পুরুষাঙ্গ অনেক বড় এরকম অনুভব করা কি কল্পনা ?
: হতে পারে।
৮৮) দুজনেই সেক্স টয় ব্যবহার করে কি পার্টনারকে আরাম দেয়া যায়?
: পার্টনারের উপর নির্ভর করবে।
৮৯) মাঝে মাঝে সেক্সের সময় কুইফ হতে হয়। শুরুতে করা কি উত্তম?
: এক্ষেত্রে অনেক বেশি সতর্ক হওয়া উচিত।
৯০) মেয়েদের গোপন অঙ্গের সাইজটা কোন ফ্যাক্ট কিনা?
: টাইটনেসে কিছু ভিন্নতা থাকতে পারে, তবে এটা কোন ফ্যাক্ট না।
৯১) খৎনা না করা পুরুষাঙ্গ কিভাবে পরিচালনা করতে হয়?
: কেউ কেউ বিষয়টিকে অনেক বেশি সেনসেটিভ ভাবে ।
৯২) হ্যান্ড জবে পূর্ব অভিজ্ঞরা কি মাঝে মাঝে তা করে?
: হ্যাঁ
৯৩) কনডম ব্যবহার সত্ত্বেও নিজেকে নিরাপদ মনে হয়না। পার্টনারকে এটা কিভাবে বোঝাতে হবে?
: পার্টনারের চরম যৌন উত্তেজনা না আসার আগেই তাকে বলতে হবে।
৯৪) পুরুষাঙ্গ কি ভাঙ্গতে পারে?
: এটা মেরুদন্ডের মত ভাঙ্গবে না তবে আঘাতের ফলে থেতলে যেতে পারে। মেডিক্যাল চিকিৎসায় সমাধান সম্ভব।
৯৫) একই সাথে একাধিক নারীর সাথে ঘুমানো অস্বাস্থ্যকর কিনা?
: যদি দুজনের সাথে সেফ সেক্স করা হয় তবে অস্বাস্থ্যকর নয়।
৯৬) অনেকের মতে কনডম উত্তেজনা কমিয়ে দেয় কি করা উচিত?
: অনেক বেশি পাতলা কনডম ব্যবহার করলে সমাধান পাওয়া যাবে।
৯৭) বেশির ভাগ লুব বিরক্তিকর। প্রাকৃতিক কোন ভিন্ন পদ্ধতি আছে কিনা?
: কৃত্রিমতামুক্ত ফায়ার ফ্লাই এবং সিল্ক ব্যবহার করা যেতে পারে।
৯৮) ওরাল সেক্সের পর যদি কিস করতে না চায় তবে কি করা উচিত?
: তার বুক থেকে নিচ পর্যন্ত কিস করা যেতে পারে।
৯৯) সেক্সের সময় কি পরিমাণ ক্যালোরি ক্ষয় হয়?
১২০ পাউন্ড ওজনের একজন মহিলা প্রতি ৩০ মিনিটে ১১৫ ক্যালরি ক্ষয় করে।
১০০) বেশির ভাগ পুরুষ নারীর মাষ্টারবেশন অথবা অশ্লীল দেখতে চায় কি না?
: হ্যাঁ।

গ্রেট সেক্স লাইফের পাঁচটা মন্ত্র

বেডরুমের রোমান্সকে আরও রোমাঞ্চকর করতে চান৷ একটা বই আপনাকে এই বিষয়ে ভীষণ ভাবেই সাহায্য করবে৷ লেখক বারবারা এবং এলান পিসের লেখা নতুন বইটাতে আপনার সেক্স লাইফকে মধুর করার সব রসদই মজুত রয়েছে৷ চলুন সেই বই অনুসারে পাঁচটা নিয়্ম জেনে নিই৷ যা মেনে চললে আপনার দাম্পত্য জীবনের সুখ আরও বাড়বে৷ এর সঙ্গে যারা বিয়ে করার বিষয়ে ভাবছেন তাদেরও বিবাহিত জীবন মধুর হবে৷

পুরুষদের মধ্যে হাস্যরস বোধ যথার্থ মাত্রায় থাকা উচিত৷ যদি বেডরুমে আপনি আপনার স্ত্রীকে প্রান খুলে হাসাতে পারেন তাহলে স্ত্রীর মন পেতে আপনার বেশী সময় লাগবে না৷

বেশীরভাগ স্মার্ট মহিলারাই প্রেমের ক্ষেত্রে ভুল মানুষটিকে বাঁছেন৷ অনেক গবেষণাতেই এই তথ্য প্রমানিত হয়েছে৷ হৃদয় গঠিত ব্যাপারে তারা একেবারেই ভুল সিদ্ধান্ত নেন৷ তাই স্মার্ট মহিলাকে জীবন সঙ্গী হিসাবে বাঁছার আগে তাঁকে একবার যাচাই করে নেবেন৷

মহিলারা সে সব পুরুষদের সঙ্গেই দৈহিক সম্পর্ক গড়তে পছন্দ করেন যারা দেখতে ভীষণই স্মার্ট৷ যারা আকর্ষক পোশাক পড়েন৷ পোশাকের সঙ্গে মানান সই টাই পড়েন৷ হাতে এক্সপেনসিভ ঘড়ি পড়েন৷ সেই সব পুরুষদের প্রতিই মহিলারা বেশী আকৃষ্ট হন৷ তাই প্রেমিকাকে মনের কথাটা জানানোর আগে নিজেকে বদলে ফেলুন৷ আপনার প্রেম কখনও বিফল হবে না৷ অপরদিকে হাবিরাও স্ত্রীর মন পেতে স্মার্ট লুক আনার চেষ্টা করুন৷

লেখকের মতে যে সব পুরুষরা ঘরের কাজকর্ম করেন৷ মহিলারা তাদের বেশী সেক্সী বলে মনে করেন৷ তাই বৌ এর মন পেতে মাঝে মধ্যে ঘরের কাজ করুন৷ এতে প্রেম বাড়বে৷

বেশীর ভাগ পুরুষই মনে করেন মহিলারা সব সময় কাজ করতে পারেন না৷ কিন্তু বর্তমান পুরুষদের এই চিন্তাধারা ভুল বলে প্রমাণিত হয়েছে৷ পুরুষদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে মহিলারা এগিয়ে চলেছেন৷ আজও অনেক পুরুষরা বিয়ের পরে স্ত্রী কে চাকুরী করার অনুমতি দেন না৷ এক্ষেত্রে দাম্পত্য জীবনে অনেক স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে অশান্তি হয়৷ কিন্তু জীবনকে রঙীন করতে হলে পুরুষদের এই ধারনা বদলাতে হবে৷ নিজের মতের পাশাপাশি স্ত্রীর মতামতকেও প্রাধাণ্য দিতে হবে৷ লেখকের মতে এক্ষেত্রে মহিলাদের আরও দৃঢ় হতে হবে৷

বেস্ট সেক্স কত মিনিটের!!!

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষজ্ঞরা এক সমীক্ষাতে জানিয়েছেন বেস্ট সেক্সুয়াল ইন্টারকোর্স 7-13 মিনিটের মধ্যে হয়৷ সমীক্ষা বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছে সাধারণত 3 মিনিটের সেক্স পর্যাপ্ত সময় হয়৷

এই সমীক্ষা করা হয়েছিল পেনিট্রেটিব সেক্সের জন্য আদর্শ সময় কি এটা বার করার জন্য৷ আমেরিকা ও কানাডার লোকেদের উপর সমীক্ষাতে রায় পাওয়া গেছে 7-13 মিনিটের মত সময় সবচেয়ে বাঞ্ছনীয় হয়৷ সমীক্ষাতে আরও জানা গেছে ইন্টারকোর্স চলার সময় 3-7 মিনিট আদর্শ৷

সেক্সের জন্য এর থেকে কম সময়কে 'সবচেয়ে কম সময়' ও 13 মিনিটের অধিক সময়কে 'বেশি লম্বা' বলা হয়েছে৷ এই সমীক্ষা 'শান্ত স্বভাবের' জুড়ির পক্ষে আদর্শ যারা বুঝতে পারে স্বাস্থ্যকর সেক্স অনেকক্ষণ সময় ধরেই চলা উচিত৷

সমীক্ষক দলের আরও মন্তব্য পুরুষদের ক্ষেত্রে সেক্সের সময় পুরুষদের লিঙ্গ কঠোর, বড় হতে হবে এবং পুরো রাত যেন সেটা সেক্সুয়াল কার্যকারিতা জন্য তৈরী থাকতে পারে৷ এই সমীক্ষার ফলে যাদের সেক্স নিয়ে মনে ভয় ও অসুরক্ষা ভাবনা আছে তারা সাহায্য পাবে বলে জানানো হয়েছে৷

এই সমীক্ষাতে আরও জানা গেছে বেশিরভাগ অস্ট্রেলিয়ার পুরুষরা সেক্সের জন্য বেশিক্ষণ সময় চায় সেখানে অস্ট্রেলিয়ান মহিলাদের ক্ষেত্রে কিছু এসে যায় না সেক্সের সময় তাডাতাড়ি শেষ হল না দেরী হল৷ সাধারণত বেশিরভাগ মহিলারা 7-13 মিনিট পর্যন্ত চলা সময়টাতেই খুশী থাকে, সেখানে পুরুষদের ক্ষেত্রে এরকম কিছু থাকে না৷